শিক্ষা সংক্রান্ত খবরাখবর নিয়মিত পেতে অথবা Register করুন
  • Home
  • News
  • Exam Result
  • National University
  • Public University
  • Jobs
  • Entertainment
  • Top Ten
  • অসুখী মানুষের ১০ অভ্যাস, যা পরিহার করা সবার জন্য জরুরী

    জন্মগতভাবে মানুষ অসুখী হয় না, কিংবা মানুষ অসুখী হয়ে জন্মায় না। মানুষ ধীরে ধীরে কিছু জিনিসকে অভ্যাসে পরিনত করে ফেলে। তারপর থেকেই মূলতঃ অসুখী হতে শুরু করে। কিন্তু সে নিজেও জানে না তার এই বদ অভ্যাসগুলোর কথা। অথচ সে বাস্তব জিবনের প্রায় সবকিছু নিয়েই অসন্তুষ্টি প্রকাশ করে থাকে। আর এবস কারনে জিবনে নেমে আসে হতাশা। নিজের জিবন যেমন হয়ে উঠে দুর্বিষহ তেমনি তার আশেপাশের মানুষকেও ফেলে দেয় অশান্তির মধ্যে। আমাদের আজকের লেখার মধ্যে থাকবে এরকম ১০ বদ অভ্যাস, যা মানুষকে অসুখি করে তোলে।

    ১. ভবিষ্যতের জন্য অপেক্ষাঃ বর্তমান অবস্থা নিয়ে কখনোই সন্তুষ্ট হয় না অসুখী মানুষেরা। তারা ধারণা করে ভবিষ্যতে হয়ত কখনো পরিস্থিতি পাল্টাবে। আর তখন সব দুঃখ ও অসন্তুষ্টি দূর হয়ে যাবে। এ কারণে তারা অনাগত সেই ভবিষ্যতের দিকে তাকিয়ে থাকে। যদিও বাস্তবে তেমন দিন আর আসে না। এ কারণে বিশেষজ্ঞরা সর্বদা বর্তমানে আপনার যা আছে তাই নিয়েই সন্তুষ্ট হতে বলেন।

    ২. বহু জিনিসের পেছনে ছোটাঃ অত্যন্ত আর্থিক সঙ্কটের মধ্যে যারা জীবনের প্রথম অংশ কাটায় তারা পরবর্তীতে আয় বাড়ানোর সঙ্গে সঙ্গে সুখও কিছুটা বাড়াতে সক্ষম হয়। কিন্তু এক পর্যায়ে তারা বহু বিলাসপণ্য সংগ্রহ করা শুরু করে। এতে এক পর্যায়ে আবার তারা আর্থিক সঙ্কটের মুখোমুখি হয়ে পড়ে। আর এ কারণে তাদের মনের শান্তি ও সন্তুষ্টি আবার চলে যায়।

    অসুখী মানুষের ১০ অভ্যাস, যা পরিহার করা সবার জন্য জরুরী

    ৩. বাড়িতে থাকাঃ অসুখী মানুষেরা সাধারণত অন্য মানুষদের এড়িয়ে চলে। আর এ কারণে তাদের সামাজিকতায়ও ঘাটতি তৈরি হয়, যা আরও নানা সমস্যা তৈরি করে। এর পেছনে প্রধান কারণ হলো তাদের মুড। মানসিক অবস্থা খারাপ থাকলে সবার সঙ্গে মেশার ক্ষেত্রে প্রতিবন্ধকতা তৈরি হয়। যদিও বিশেষজ্ঞরা এক্ষেত্রে অসামাজিক না হতে বলেন।

    ৪. নিজেকে পরিস্থিতির শিকার মনে করাঃ অসুখী মানুষ সর্বদা নিজেকে পরিস্থিতির শিকার বলে মনে করে। তাদের হাতে নিজের এ পরিস্থিতি সামলানোর কোনো উপায় নেই এবং কিভাবে যে তা হয়ে গেছে, এমন একটা ধারণা থাকে। এ ধারণার কারণে এরা নিজের পরিস্থিতি পাল্টানোর জন্য কোনো চেষ্টাও করে না। যদিও বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এ ধারণা ভুল। পরিস্থিতি যাই হোক না কেন, তা পাল্টানোর জন্য চেষ্টা করতে হবে নিজেকেই।

    ৫. হতাশাঃ অসুখী হওয়ার পেছনে অন্যতম কারণ হতাশা। এটি মূলত মুড কিংবা সাময়ীক মানসিক পরিস্থিতি নয়, এটি তৈরি হয় আরও বড় আকারে। হতাশার কারণে মানুষ নিজেই নিজের মাঝে একটি দুঃখজনক পরিস্থিতি তৈরি করে। এরপর যে কোনো পরিস্থিতিতেই মানুষ ভালো নয় বরং মন্দ বিষয়টি আশা করে।

    ৬. অভিযোগঃ এটি অসুখী মানুষের আরেকটি নেতিবাচক বৈশিষ্ট্য যে, তারা কখনোই সন্তুষ্ট হয় না। নানা বিষয় নিয়ে তারা ক্রমাগত অভিযোগ করতে থাকে। যারা ক্রমাগত অভিযোগ করতে অভ্যস্ত তারা নিজেই এ পরিস্থিতি তৈরি করে। অন্যরাও তাদের অভিযোগের কারণে অতিষ্ট হয়ে পড়ে।

    ৭. নেতিবাচক দৃষ্টিতে দেখাঃ বাজে বিষয় সবার ক্ষেত্রেই ঘটতে পারে। কিন্তু আপনি বিষয়টিকে কেমন দৃষ্টিতে দেখছেন তা গুরুত্বপূর্ণ। একটি বাজে বিষয় যখন কোনো একজন নেতিবাচক মানুষের ক্ষেত্রে ঘটে তখন তারা সে দিনটিকেই বাজে হিসেবে দেখে। অনেকে আবার বছরটিকেও বাজে মনে করতে পারে এমনকি জীবনটাকেও মূল্যহীন মনে করতে পারে। যদিও ইতিবাচক মানুষ সে বাজে বিষয়টিকে সেভাবে পাত্তা না দিয়ে বরং তাকে ভালো দৃষ্টিতে দেখতে চায়।

    ৮. সমস্যা লুকিয়ে রাখাঃ অনেক অসুখী মানুষ তাদের গুরুত্বপূর্ণ সমস্যা লুকিয়ে রেখে প্রকাশ করতে চায় যে, সবকিছু স্বাভাবিক আছে। যদিও পরবর্তীতে এ সমস্যা যখন আরও বেড়ে যায় তখন তা নিজে থেকেই প্রকাশিত হয়ে পড়ে। আর এতে তারা নিজেকে অবস্থার শিকার হিসেবেই বর্ণনা করে।

    ৯. উন্নতি না হওয়াঃ অসুখী মানুষ প্রায়ই নিজের উন্নতির জন্য কোনো চেষ্টা করে না। এতে তাদের উন্নতির সম্ভাবনা বন্ধ হয়ে যায়। তাদের দেখা যায় আরাম করে পরিস্থিতি পাল্টাবে এমন আশায় দিন গুনতে। যদিও চেষ্টা না করার কারণে পরিস্থিতিও পাল্টায় না।

    ১০. অন্যের সঙ্গে তুলনাঃ অন্যের সঙ্গে তুলনা করার পাশাপাশি অসুখী মানুষকে সর্বদা হিংসা করতে দেখা যায়। তারা অন্যের সঙ্গে নিজের তুলনা করে এবং অন্যের উন্নতিতে মনে দুঃখ পায়। এ কারণে তাদের মানসিক অবস্থাও ক্রমে খারাপ হয়ে যায়।.

    5 August 2016 | 337 views